‘এই  ভুল কাজটি করলেই বিপদে পড়বেন’

মাঠে, খোলা জায়গায় মলত্যাগ করার অভ্যাস থাকলে এখনই সচেতন হ’ন। তা না হলে বিপদ কেবল সময়ের অপেক্ষা। এবার থেকে গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রতি বুথে তৈরি হয়েছে ‘মিশন নির্মল বাংলা নজরদারি কমিটি’। কমিটিতে থাকছে শিক্ষক, সমাজকর্মী, আশাকর্মী, অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীরাও। সকাল-সন্ধ্যে দলে ভাগ হয়ে চলবে নজরদারি। তাই যেখানে-সেখানে মলত্যাগ করতে দেখলেই ওই কমিটি সরাসরি অভিযোগ জানাবে গ্রাম পঞ্চায়েতে। সতর্ক না হলে নিজের পায়খানা মাটি চাপা দিতে বাধ্য করা হবে নিজেকেই। তবে প্রয়োজনে কমিটি কোদাল দিয়ে সাহায্য করতে পারে আপনাকেই আপনার পায়খানা মাটি চাপা দেবার কাজে। গাঁই-গুঁই করলেই পুলিশ এসে নিয়ে যাবে হাজতে।
দাসপুর-২ ব্লকের বিডিও বিট্টু ভৌমিক ওই ব্লকের অধীনে পঞ্চায়েতগুলির কমিটির সদস্যদের জরুরি ভিত্তিতে কাজ শুরু করতে নির্দেশ দিয়েছেন। ব্যাপক প্রচারের উদ্যেশ্যে কমিটির সদস্যদের পঞ্চায়েত সমিতির তরফ থেকে একটি টুপি ও টি-সার্ট দেওয়া হয়েছে।
এনিয়ে সর্বস্তরে সচেতনতা মূলক প্রচার চালানো হচ্ছে। ছোটদের সাথে তাদের অভিভাবকদের সচেতন করে তুলতে দাসপুর-১ এর রাজনগর গ্রামপঞ্চায়েত নিয়েছে অভিনব উদ্যোগ। ঘোষণা করা হয়েছে কোনও অনুষ্ঠানে অঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিষয় ‘নির্মল বাংলা’ রাখলে ওই প্রতিযোগিতার খরচ বহন করবে গ্রামপঞ্চায়েত। ওই পঞ্চায়েতের প্রধান সুমিতা আলু জানান, এতে সাড়াও মিলছে বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানগুলি থেকে।
মোটের উপর মহকুমাজুড়ে মিশন নির্মল বাংলা নিয়ে প্রচার এখন জমজমাট। কাজেই, মান-সন্মানের ভয় থাকলে ভুলে যান মাঠ-ঘাটে পায়খানা করার অভ্যেস।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

সুদীপ্ত শেঠ

আর্থ-সামাজিক বিষয়ে প্রবন্ধ লেখা আমার অন্যতম নেশা।আমার লেখা প্রতিবেদন সংক্রান্ত ব্যক্তিগত মতামত ও পরামর্শ আমার ফোনে বা ইমেলে দেওয়া যাবে।

ফোন:9547128133

ইমেল:sudiptaseth8@gmail.com


  • gplus

Leave a comment