ঘাটালেও ব্লু হোয়েল খেলায় আসক্ত সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্র, উদ্বেগ অভিভাবকদের মধ্যে

পশ্চিম মেদিনীপুরের আনন্দপুর এবং গড়বেতার পর ঘাটাল মহকুমাতেও সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রের ব্লু হোয়েল বা নীল তিমির মারণ খেলায় আসক্তের খবর পাওয়া গিয়েছে। ওই ছাত্রটি মহকুমার একটি নামী স্কুলে পড়াশোনা করে। ২৮ আগস্ট রাতে ওই ছাত্রটির প্রাইভেট টিউটর প্রথম ওই লক্ষণ দেখতে পান। তিনিই সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রের বাবাকে বলেন। ছাত্রটির শরীরের বিভিন্ন অংশ পরীক্ষা করে দেখার পর তার হাতে নীল তিমির খেলার ধাপ হিসেবে কয়েকটি কাটা চিহ্ন দেখতে পাওয়া যায়।

১৩ বছরের সন্তান ব্লু হোয়েল খেলায় মেতেছে জানতে পেরেই ওই ছাত্রের বাবা-মা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। ২৮ অাগস্ট রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ ছাত্রটির বাবা হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করে সমস্ত বিষয়টি ঘাটালের বাসিন্দা তথা রাজ্যস্তরের দৈনিক পত্রিকার এক সাংবাদিককে জানান। ছাত্রের বাবা বলেন, ওই সাংবাদিক রাতেই আমাদের বিশেষ ভাবে সহযোগিতা করেন। পরের দিন আমার ছেলেকে কাউন্সেলিঙের ব্যবস্থাও করে দেন। ছাত্রের বাবা বলেন, বর্তমানে আমার ছেলে সুস্থ ও স্বাভাবিক রয়েছে। ওই খেলা থেকে পুরোপুরি বিরত রয়েছে।

তবে যেভাবে ওই নীল তিমি খেলাটি প্রত্যন্ত এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে তার ফলে কম বয়সী ছেলেমেয়েদের বাবা মায়েরা খুবই উদ্বেগে রয়েছেন। এবিষয়ে মানসিক রোগের চিকিৎসকেরা পরামর্শ দিচ্ছেন: •কম বয়সী ছেলে-মেয়েদের হাতে কম্পিউটার, মোবাইল তুলে না-দেওয়াই ভালো। •দিলেও তা কী ভাবে ব্যবহার করছে তা লক্ষ্য রাখতে হবে। •ছেলে-মেয়েদের আচরণের মধ্যে কোনও অস্বাভাকিতা দেখা যাচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। •বন্ধুদের সঙ্গে অবাধ মেশার বিষয়টিও নজরে রাখতে হবে। •সর্বোপরি, বাবা-মায়েদের তাদের ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে যতটা সম্ভব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি করতে হবে।

Recommend to friends
  • gplus
  • pinterest

About the Author

Leave a comment