লকডাউনে ৭০কিমি দূর থেকে সাইকেলে করে ঘাটালে এসে অফিস করছেন এক কর্মী

শুভম চক্রবর্তী: কর্তব্যের প্রতি আন্তরিকতা থাকলে বোধহয় কোনও বাধাই প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়াতে পারে না। আর তাই অদম্য জেদ এর ওপর ভর করে প্রায় ৭০কিমি সাইকেল চালিয়ে কাজে যোগ দিতে আসছেন নিয়মিত ঘাটাল জনস্বাস্থ্য কারিগতি দপ্তরের এক কর্মী। পেশায় অস্থায়ী নিরাপত্তারক্ষী নাম সুদীপ কুমার আদিত্য। তাঁর বাড়ি পিংলার গোপীনাথপুরে। কিছুদিন আগে পর্যন্ত সুদীপবাবু বাসে চেপেই আসতেন কাজে যোগ দিতে কখনও-কখনও কাজের সূত্রে থেকেও যেতেন অফিসে কিন্তু এই লকডাউন পরিস্থিতিতে বন্ধ সমস্ত রকম পরিবহণ ফলে কিভাবে কাজে আসবেন সেই নিয়ে প্রথমে বেশ চিন্তায় ছিলেন। কিন্তু যাদের মধ্যে কাজের প্রতি দায়িত্ববোধ গভীরভাবে গেঁথে গেছে তাদের কি আটকানো যায় এত সহজে? অল্প বেতনের অস্থায়ী কর্মী তাই মোটরবাইক কেনার সামর্থ্যও নেই। কিন্তু তাতে কি? কর্তব্য আর জেদের কাছে হার মেনেছে সমস্ত বাধা। বাড়িতে রাখা সাইকেলে চেপে প্রায় ৭০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে কাজে যোগ দিচ্ছেন তিনি। প্রতিদিন যাতায়াত সম্ভব নয় তাই একবার কাজে যোগ দিলে বেশ কয়েকদিন কাজ সেরে তবে বাড়ি ফিরছেন। জনতা কারফিউ যেদিন শুরু হল তারপর থেকে তার শুরু হয়েছে এই সাইকেল যাত্রা। এতটা পথ পাড়ি দিয়ে বাড়ি পৌঁছানোর পর ক্লান্তিতে ভারি হয়ে আসে পায়ের পাতা, দৃষ্টি হয়ে পড়ে ঝাপসা, বিছানায় শরীর ফেলার পর কোমরের অসহ্য যন্ত্রণায় কুঁকড়ে ওঠেন পঞ্চাশ ছুঁই ছুঁই এই কর্মী। বাড়ির একমাত্র রোজগেরে মানুষ তাই সমস্ত দায়িত্ব তার কাঁধে তাছাড়া স্ত্রী ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত রোগী। তাই শত কষ্ট দাঁতে দাঁত চেপে সহ্য করেও ছুটে যেতে হয় বাড়িতে। সামান্য মাইনের সিংহভাগ অংশই চলে যায় ওষুধ কেনাতেই। এমনও দিন গেছে বাড়ি ফেরার পথে চাকা পাংচার হয়ে যাওয়ায় সাইকেল ধরেই কয়েক কিলোমিটার হেঁটে ফিরতে হয়েছে বাড়ি।
কিন্তু তাই বলে তো আর কাজে ফাঁকি দেওয়া যায় না তাই দুটো দিন বিশ্রাম নিয়ে আবার পা দেন সাইকেলের প্যাডেলে। টানা সাড়ে ছয় ঘণ্টার সাইকেল যাত্রায় উদ্দেশ্যে। লকডাউন কবে শিথিল হবে জানেন না তিনি এই নিয়ে যে বিশেষ চিন্তাও তার মাথায় এমনটাও নয়। তবে তাঁর কাজে যে শিথিলতা আসবে না তা প্রমাণ করে সাইকেলের হ্যান্ডেল শক্ত করে ধরে রাখা হাতদুটো আর সামনে এগিয়ে যাওয়ার দৃষ্টি।

ঘাটাল মহকুমার সমস্ত আপডেট তে যুক্ত হন আমাদের সাথে!

‘স্থানীয় সংবাদ’ •ঘাটাল •পশ্চিম মেদিনীপুর-৭২১২১২ •ইমেল: [email protected] •হোয়াটসঅ্যাপ: 9933998177/9732738015/9932953367/9647180572/9434243732 আমাদের এই নিউজ পোর্টালটি ছাড়াও ‘স্থানীয় সংবাদ’ নামে একটি সংবাদপত্র, MyGhatalমোবাইল অ্যাপ এবং https://www.youtube.com/SthaniyaSambad ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে।