প্রশাসনিক উদাসীনতায় গ্রামীণ রাস্তা মেরামতের দায়িত্ব নিল স্থানিয়ারাই

মনসারাম কর: গ্রামীণ রাস্তার বেশ কিছুটা অংশ দীর্ঘদিন ধরেই যাতায়াতের অযোগ্য হয়ে গিয়েছিল। রাস্তাটির উভয় পাশেই প্রায় ২৫ ফুট গভীর কাটা খাল রয়েছে। স্বভাবতই রাস্তার এই অংশটি দিয়ে পথচারীদের যাওয়া-আসা ছিল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। গ্রামীণ রাস্তা হলেও গ্রামের অধিকাংশ মানুষকে এই রাস্তাটি ব্যবহার করতে হয়। ঘাটাল ব্লকের সুলতানপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত বালিডাঙ্গা গ্রামের এই গ্রামীণ রাস্তাটি ধরেই অধিকাংশ স্কুল ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুলে যেতে হয়। দীর্ঘদিন ধরেই রাস্তার এই ঝুঁকিপূর্ণ খারাপ অংশটি প্রশাসনিকভাবে মেরামত না করায় গ্রামের একাংশের মধ্যে ক্ষোভ দীর্ঘদিনের। ১২  নভেম্বর মঙ্গলবার স্থানীয়রাই নিজস্ব উদ্যোগে তহবিল তৈরি করে এবং ইঁট বালি দিয়ে দিনভর অক্লান্ত পরিশ্রম করে রাস্তাটি মেরামতের ব্যবস্থা করেন। রাস্তা মেরামতের সাথে সাথে প্রায় দুই কিলোমিটার গ্রামীণ রাস্তার দুই পাশের বন-জঙ্গল ও পরিষ্কার করেন। প্রসঙ্গত এই রাস্তার দুইপাশে সমগ্র রাস্তাজুড়ে বাঁশ গাছ রয়েছে। সাম্প্রতিক ঝড়ের তাণ্ডবে এই বাঁশ গাছ এবং বাঁশের কঞ্চিতে রাস্তা প্রায় ঢেকে গিয়েছিল। মোটর বাইক বা সাইকেল নিয়ে চলতে গেলে চোখে মুখে সেই কঞ্চি আঁচাড় কাটছিল। এলাকার পরিচিত কয়েকজনের এই কর্মসূচি দেখে খুশি অন্যান্য গ্রামবাসীরা। এই কর্মসূচির উদ্যোক্তা  গণেশচন্দ্র মান্না, উৎপল মাজি, কৃষ্ণপদ মন্ডল, কৌশিক জানা, স্বদেশ মিদ্যা, বিমল খাটুয়া, শম্ভু পাঁজা ও কিংশুক সানকি রা বলেন, এটা কোনও বিশেষ ব্যাপার নয়। আগেও আমরা এই ধরনের কাজ করেছি, রাস্তার এই অংশটি অত্যন্ত খারাপ ছিল, প্রয়োজন বোধ করে এটা আমরা মেরামতের ব্যবস্থা করলাম। 

ঘাটাল মহকুমার সমস্ত আপডেট তে যুক্ত হন আমাদের সাথে!