“চিতাবাঘের ভারতে আসার গল্প” — অর্জুন পাল

অর্জুন পাল, ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ও ডেপুটি কালেক্টর: নব্য ভারতের প্রতিটি গর্বিত নাগরিকের পক্ষ থেকে, আমি নামিবিয়া থেকে মধ্যপ্রদেশে আটটি আফ্রিকান চিতা সফলভাবে আমদানির জন্য আমাদের সরকারকে অভিনন্দন জানাই। বলা বাহুল্য, এই প্রাণীদের ঊর্ধ্বতন চতুর্দশ পুরুষের অশেষ পুণ্যের ফলে আফ্রিকায় জন্মগ্রহণ করলেও, তারা এখন ভারতীয় নাগরিক হয়ে উঠেছে এবং শেষ পর্যন্ত যখন তারা মারা যাবে, তারা হয় সরাসরি মোক্ষ লাভ করবে বা গরু হিসাবে পুনর্জন্ম পাবে বলে আমার মনে হয়। যদিও এই স্থানান্তর সহজ ছিল না। ওদের নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা বরং অপেক্ষাকৃত সহজ ছিল। চ্যালেঞ্জটি ছিল চিতাদের ভারতে স্থানান্তরিত হতে অনুপ্রাণিত করা কারণ আফ্রিকার প্রাণীরাও জানে যে বুদ্ধিমান লোকেরা ভারতে আসতে চায় না, বরং ভারতের বাইরে চলে যান। সৌভাগ্যবশত, চিতারা এই ব্যাপারে ভারতীয় হাতিদের যুব সংগঠনের সাথে একটি বৈঠকে বসতে সম্মত হয়েছিল। হাতি চিতাদের বোঝায় যে তারা তাদের মাতৃভূমি ছেড়ে যাচ্ছে না বরং তাদের আসল বাড়িতে ফিরে যাচ্ছে। এই আসল বাড়ি হল ভারত এবং তাই এটি তাদের জন্য ঘর ওয়াপসি বলা যেতে পারে। কিন্তু চিতাদের একটাই দুশ্চিন্তা ছিল। “আমাদের কি এখন ভারতে ‘বহিরাগত’ হিসাবে গণ্য করা হবে না? তারপর যদি NRC করে আমাদের ডিটেনশন ক্যাম্পে ঢুকিয়ে দেয়?”

তারা আরও জানতে চেয়েছিল যে, “তখন কি হবে যদি ভারতীয় বন্যপ্রাণীরা আমাদের ঠাট্টা করে বলে, তুমি এশিয়াটিক চিতাদের বংশধর নও, যারা আগে ভারতে ছিল। তুমি অনুপ্রবেশকারী! এখনই আফ্রিকায় ফিরে যাও!” “দেখুন,” জ্ঞানী হাতি শুঁড় পেঁচিয়ে বললেন, “সংশোধনবাদীদের ইতিহাসে ভারত হল বিশ্বগুরু। পাঁচ বছরেরও কম সময়ের মধ্যে, সনাতন ভারতীয় পণ্ডিতরা এই সত্যটি প্রমাণ করে দেবেন যে আফ্রিকান চিতারা মূলত ভারতীয় ছিল। তারা আফ্রিকায় বসতি স্থাপন করতে এবং একটি নতুন প্রজাতি শুরু করার জন্য পুষ্পক বিমানে লোহিত সাগর পাড়ি দিয়েছিল। আমরা এটাও প্রমাণ করব যে আফ্রিকান চিতার নাম ‘চিতা’ – একটি সংস্কৃত শব্দ থেকে এসেছে যার অর্থ ‘দাগযুক্ত প্রাণী’। এসব শুনে চিতারা প্রফুল্লভাবে ভারতীয় হবার জন্য তাদের নামিবিয়ান পাসপোর্ট পরিত্যাগ করে আমাদের ভোটার কার্ডে নাম তুলে নেয়। এরা এখন কুনো ন্যাশনাল পার্ক-এ একটি প্রশস্ত আট কামরার ফ্ল্যাটে নিজেদের উপভোগ করছে — যেটিকে কিছু ইতর শ্রেণির লোক দ্বারা একটি ‘ঘেরা জায়গা’ হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। দুর্ভাগ্যবশত, ভারতে কিছু ইতর প্রকৃতির লোক আছে যারা যে কোনও খুশির খবর শুনে কখনোই খুশি হন না। তাদের মধ্যে কেউ কেউ বলতে শুরু করেছে যে চিতাগুলি এখানে আনা ঠিক হয়নি কারণ ভারত তাদের প্রাকৃতিক আবাস বা শিকারের জন্য যথেষ্ট রসদ যোগান দিতে পারে না। স্পষ্টতই, চিতারা নামিবিয়ার মতো জায়গাতে শিকারের জন্য হাজার হাজার কিলোমিটারের বেশি দূরত্ব অতিক্রম করতো। এখানে সেই জায়গা কোথায় পাবে? দেখুন আমার মতে, মানুষ একসময় শিকারী ছিল। কিন্তু আমরা কতজন এখনও প্রাতঃরাশের জন্য বর্শা তুলে শিকারে যাই? একটি চিতা খুব দ্রুত দৌড়াতে পারে বলে, এর মানে কী প্রতিবার ক্ষুধার্ত হলে সে খুব দ্রুত দৌড়াতে চাইবে? মুখের সামনে খাবার দিলেও খাবে না? সংরক্ষণবাদীরা যা বোঝেন না তা হল যে, এই চিতাগুলি আজ এখানে এসেছে তার কারণ রয়েছে যখন ভারতের নিজস্ব চিতাগুলি ১৯৫২ সালের মধ্যে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিল। কারণ তারা পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়াতে পারেনি। ওসব চোরাশিকারী টিকারী সব বাজে কথা। আর এগুলি হলো বিবর্তিত, আধুনিক, স্মার্ট চিতা যারা সেলফি তোলার জন্য পোজ পর্যন্ত দিতে পারবে। নোংরা সমালোচনা করার পরিবর্তে, ভারতে আচ্ছে দিন আনার জন্য অন্য কোন কোন প্রাণী আমদানি করতে হবে সে সম্পর্কে আমাদের সরকারকে নতুন ধারণা দেওয়া উচিত। যেমন আমার তালিকা দিলাম:

রাজস্থানে পেঙ্গুইন আমদানি : ভারতে একসময় প্রচুর পেঙ্গুইন ছিল যখন এটি গন্ডোয়ানাল্যান্ডের অংশ ছিল। তারপর ভারত অ্যান্টার্কটিকা থেকে আলাদা হয়ে গেল এবং আমরা আমাদের সমস্ত পেঙ্গুইন হারিয়ে ফেললাম। কিন্তু শুধু ভারত গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলে থাকায় হাল ছেড়ে দেওয়ার কোনও কারণ নেই। একটি সমাধান আছে রাজস্থানের মরুভূমি। মরুভূমিতে রাতগুলি সত্যিই ঠাণ্ডা, এবং পেঙ্গুইনরা ঠাণ্ডা পছন্দ করে। পেঙ্গুইনগুলিকে দিনের বেলা ফ্রিজে রাখুন এবং রাতে মরুভূমিতে ছেড়ে দিন। কুং ফু পাণ্ডাগুলিকে ইন্দো চীন বর্ডারে স্থানান্তর: চীনের পাণ্ডা রয়েছে তবে তারা সাধারণ পাণ্ডা যারা যুদ্ধ করতে জানে না। ভারতের উচিত হলিউড থেকে সরাসরি কুংফু পাণ্ডা কেনা এবং LAC বরাবর একটি জাতীয় উদ্যানে রাখা। আসুন দেখি চীন কী করে আমাদের ভূখণ্ডের আরও ১০,০০০ বর্গ কিমি দখল করার চেষ্টা করে।

গুরগাঁও ন্যাশনাল পার্কে বলিভিয়ান জাগুয়ার: ভারতের জাগুয়ার জনসংখ্যা বেশিরভাগই পরিবর্তিত হয়ে গাড়ি হয়ে গেছে। আমি বলিভিয়া থেকে আটটি জাগুয়ার আমদানি করে কিছু বৈচিত্র্য যোগ করার পরামর্শ দিই। তাদের আবাসস্থল খুঁজে পাওয়া কোন সমস্যা হবে না। গুরগাঁওয়ের সমৃদ্ধশালী লোকেরা তাদের গ্যারেজে জাগুয়ার রাখার জন্য খুব খুশি হবে।

সেন্ট্রাল ভিস্তা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে অস্ট্রেলিয়ান মিঠা পানির কুমির: প্রজাতিটি, যদিও কুইন্সল্যান্ডের স্থানীয়, এই আবাসস্থলে সম্পূর্ণরূপে নিজের বাড়ির মতো থাকবে।

ঘাটাল মহকুমার সমস্ত আপডেট তে যুক্ত হন আমাদের সাথে!

‘স্থানীয় সংবাদ’ •ঘাটাল •পশ্চিম মেদিনীপুর-৭২১২১২ •ইমেল: [email protected] •হোয়াটসঅ্যাপ: 9933998177/9732738015/9932953367/9647180572/9434243732 আমাদের এই নিউজ পোর্টালটি ছাড়াও ‘স্থানীয় সংবাদ’ নামে একটি সংবাদপত্র, MyGhatalমোবাইল অ্যাপ এবং https://www.youtube.com/SthaniyaSambad ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে।